শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুমিল্লা বুড়িচংয়ে ৯ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক কারাগারে! কুমিল্লা দেবিদ্বার এলাহাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি প্রক্রিয়া গোপনে গঠনের অভিযোগ কুমিল্লায় সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা নিরাপত্তায় থানায় জিডি কুমিল্লা তিতাসে জাগর স্বদিচ্ছা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুমিল্লা বুড়িচং প্রেস ক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় শিশুকে তেঁতুলের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ শেষে হত্যা, যুবকের মৃত্যুদণ্ড কুমিল্লায় প্রতারণার মামলায় জেল থেকে বের হয়ে এবার অপহরণ করে চাঁদা আদায়ের ঘটনায় গ্রেফতার- ৩ কুমিল্লা সাংবাদিক ও কলামিস্ট জাহাঙ্গীর আলম জাবির এর মায়ের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত চৌদ্দগ্রাম প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি গঠন কুমিল্লায় কর্মরত সাংবাদিক সফিউল আলমকে প্রাননাশের হুমকি!থানায় সাধারণ ডায়েরি

কুল চাষে কপাল খুলছে চরের কৃষকদের

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩৯৩ Time View

কুমিল্লায় কুল চাষে কপাল খুলছে চরের কৃষকদের

মোঃ আবদুল আউয়াল সরকার,
কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধিঃ

কাশ্মীরি আপেল কুল। দেখতে অনেকটা মাঝারি সাইজের আপেলের মতো। রং আপেলের মতো সবুজ ও হালকা হলুদের ওপর লাল। বাজারে এখন প্রায় সারা বছরই দেখা মেলে কুল বা বরই। দেশি ফল হিসেবে বরইয়ের চাহিদা সব সময়ই তাই থাকে তুঙ্গে। মাত্র চার মাসের ফসল। বছরে ফলন পাওয়া যায় তিনবার। এতেই কৃষকের ঘরে ঢোকে কোটি টাকা। বিশেষ করে লাভ বেশি হওয়ায় চরের কৃষকরা এখন কুল চাষে ঝুকেছেন৷ তাই বছর বছর বাগান বাড়ছেই।
কুলে কপাল খুলছে চরের কৃষকদের। কুলেই জীবন বদলের স্বপ্ন দেখছেন তারা।
কাশ্মিরি আপেল কুল চাষে সফল ২৩ বছরের যুবক শাহাজাহান। কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের গোমতী নদীর তীরে ঝাকুনিপাড়া গ্রামে আবু কাশের ছেলে তিনি। ছোটবেলা থেকে তার স্বপ্ন ছিলো বিদেশ গিয়ে মায়ের স্বপ্নগুলো পুরণ করবে। নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে বাবার নার্সারি সঙ্গে গড়ে তুলেন কাশ্মিরি আপেল কুলের বাগান। পুরো বাগান জুড়েই বিভিন্ন ফুলের সঙ্গে কাশ্মিরি আপেল কুলের সমাহার।
মায়ের কাছ থেকে মাত্র ৩০ হাজার টাকা নিয়ে ২০১৯ সালে শখের বশে শুরু করেছিলেন কাশ্মীরি কুল চাষ। গোমতীর চরে ৮০ শতাংশ জমিতে রোপণ করেছিলেন কাশ্মীরি কুলের ৩৫০টি চারা। বর্তমানে তা দাড়িয়েছে ৬০০টিতে। সফলতা পেয়ে এবছর কাশ্মীরি কুলের পাশাপাশি করেছেন বল সুন্দরী চাষ। আপেলের মতো সবুজ ও হালকা হলুদের ওপর লাল। স্বাদ হালকা মিষ্টি, অনেকটা বাউকুলের মতো। প্রচলিত আপেল কুল ও বাউকুলের থেকে আকারে বেশ বড় এই কাশ্মীরি আপেল কুল।
মো.শাহজাহান জানান, ৩ বছর আগে ভারত থেকে চারা আনেন। আনা-নেওয়াসহ প্রতিটি চারার খরচ পড়ে ১৫০-১৮০ টাকা। এখন পর্যন্ত তিন বছরে তার ব্যয় হয়েছে ১ লাখ হাজার টাকার মতো। প্রতিটি বছর গাছে প্রচুর পরিমাণে কুল ধরে। প্রথম ও ২য় বছর মিলে তিনি লাভ করেছে ৩ লাখ টাকা। এ বছরও প্রতিটি গাছ ৩০-৪০ কেজি করে কুল ধরেছে। এভাবে টানা ৫-৭ বছর পর্যন্ত ফল বিক্রি করা যাবে। প্রতি কেজি কুল ২০০-২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তিনি এখনও বিক্রি শুরু করেননি। দু’একদিনের মাঝে শুরু করবেন। সব মিলিয়ে এ বছর তিনি ১০ লাখ টাকার কুল বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন।

এদিকে এ তরুণের সফলতা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান। কাশ্মীরি আপেল কুল বাগানটি পরিদর্শনের করেন। শাহজাহান মিয়ার বল সুন্দরী ও কাশ্মীরি আপেল কুলের এই বাগান দেখতে প্রায় নিয়মিত লোকজন ভিড় করছেন। চার ফুট উচ্চতার একেকটি গাছ। ডালে থোকায় থোকায় ধরে আছে বরই। পরিপক্ব বরইগুলো দেখতে লাল আপেলের মতো। স্বাদে মিষ্টি। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে এগুলো কাশ্মীরি বরই বলে বেশ পরিচিত। বরইগাছ বড় হওয়ার পর ছড়ানো ডাল ঠিক রাখার জন্য বাঁশের খুঁটি ব্যবহার করেন। নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে গাছগুলোতে ফুল আসে। এসব কুল প্রথমে সবুজ থাকে। পরে সেটি লাল রং ধারণ করে। জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে ফল পরিপক্ব হয়। এরপর থেকে বরই বিক্রি শুরু করেন। প্রতিদিন আশপাশের বিভিন্ন গ্রাম ও কুমিল্লা শহর থেকে মানুষ এসে তাঁর এই বাগান থেকে বরই কিনে নিয়ে যান।
শাহজাহান মিয়া আরো বলেন, অ্যাগ্রো অ্যান্ড নার্সারি নামে নার্সারি দিই। এই নার্সারির আওতায় বরইবাগানের পাশে অন্য জমিতে বিভিন্ন ফুল, ফল, সবজির চারা বপন করে চারা বিক্রি করি। মা আমাকে সহযোগিতা করেন। বর্তমানে আমার বাগানে চারজন শ্রমিক কাজ করে। সরকারি সহযোগিতা পেলে বাগানের বিস্তৃত ঘটিয়ে ১০০জনের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে চায়।
উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, কাশ্মিরি আপেল কুল রৌদ্রুজ্জ্বল, উচুঁ জমিতে কুল বাগান ভালো হয়। মুলত এটি দুই জাত রয়েছে, একটা হলো লালছে আপেল কুল, অন্যটি হলো সবুজ রঙেং বল সুন্দরী। যেখানে পানি জমে না সেখানে ভালো চাষ হয় কাশ্মীরি কুল। কৃষকরা অল্প পুঁজিতে অধিক লাভবান হচ্ছে। জেলা মুরাদনগর উপজেলার ৬০ বিঘা জুড়ে কাশ্মিরি আপেল কুলের বাগান রয়েছে ।এছাড়া জেলা কৃষি অফিসের উদ্যােগে একটি কাশ্মিরি আপেল কুল বাগান তৈরি করেছি। এছাড়া এধরনের জাতে চাষাবাদে নিয়মিত কৃষকদের সহযোগিতা দিচ্ছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 dailysomoyarbangladesh.com
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin